How to be a WBCS Officer with self studies

কিভাবে নিজের প্রচেষ্টায় WBCS অফিসার হবে 


তুমি কি বেকার , ছোট চাকরি করো 

‘বেকার শব্দটি কেন কোনো চাকুরীহীন ছেলেমেয়ের জন্য ব্যবহার হয় , আমার জানা নেই। প্রথাগত পড়াশুনো শেষ করবার পর আমাদের সমাজ , আমাদের নিম্ন মধ্য বিত্তের , নিম্ন বা মধ্য বিত্তের অর্থাৎ চাকরি যাদের বেঁচে থাকার জন্যে প্রয়োজন তাদের সমাজ কোনো কাজ পাবার আগের দিন পর্যন্ত বেকার বলেই জানে। তুমি নিজেকে কারো মুখ থেকে এমন শব্দে বিশেষিত হাতে শুনেছ কিনা জানিনা, শুনলে দেখবে ‘ও এখনো বেকার আছে’ কথাটা যথেষ্ট পীড়া দেয়। আমার এই লেখা তোমার জন্য , যে আর ওই শব্দটি শুনতে চাও না।

অথবা তোমার জন্য , তুমি হয়তো একটা কাজের ব্যবস্থা করেছো। কিন্তু সন্তুষ্টি নেই মানের মাঝে। এই দশটা পাঁচটার চাকরি করতে করতে হাফিয়ে যাচ্ছো।  নিজের ছোটবেলা থেকে লালন করে আসা স্বপ্ন থেকে সরে গেছো বহুদূরে। গড়পড়তা লাগতে শুরু করেছে নিজেকে।

বিশ্বাস করো আমিও যখন কর্মহীন ছিলাম বেকার  কথাটা বহুবার শুনেছি। পরে যখন কিছুদিন একটা ছোট চাকরি করি , তখন গড়পড়তা হয়ে যাওয়ার দুঃস্বপ্ন প্রতি মুহূর্তে দেখতাম।  চলো এবার শুরু করা যাক লড়াই এই শব্দগুলিকে  হার মানানোর। আমি বাড়িয়ে দিলাম আমার

 হাত তোমার উদ্দেশ্যে , এবার তুমি ঠিক করে নাও , তুমি কি করতে চাও।  চাইলে এখুনি হাত ধরতে পারো অথবা পড়া শেষ করে এই লেখা থেকে চলে যেতে পারো অন্য কোথাও।

তোমার সিদ্ধান্তই শেষ কথা 

যদি মনে করো আমার হাত ধরবে তুমি, তাহলে আজ এইটুকু কথা দিলাম তোমাকে যাত্রা আজ শুরু করলে পৌঁছে যাবো ঠিক এমন এক জায়গায় যেখানে পৌঁছে অন্তত মনের মধ্যে কোনো আফসোস থাকবে না।  তোমার বাবা মার মুখে নিজের সন্তানের জন্য গর্বের প্রতিফলন হবে। ভেবে দেখো ওরা

কত কষ্ট করে আমাদের লালন করে , যার প্রতিদান দেওয়া শুরু করি আজ থেকেই। তারা তোমাকে জন্ম দেওয়ার জন্য গর্বিত হয়ে উঠুক। ভুলে যাক ঘাম ঝরানো কষ্টের দিন।

কোচিং সেন্টার না ব্যবসা 

যেকোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু করতে গেলেই আগে যেটা মাথায় আসে তা হল- কোচিং নেবো কি নেবো না? এই দ্বন্ধেই কেটে যায় বেশ কিছু সময়। তবে সাফল্য পেতে গেলে কোনো কোচিং সেন্টার ই যে অপরিহার্য নয়, তা বহু পরীক্ষার্থী প্রমাণ করেছে। আর কোচিং সেন্টারের নাম করে যে বড় ব্যবসা ফেঁদেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান , আমরা লড়াই করছি তো

তার বিরুদ্ধেই।  সম্পূর্ণ

বিনামূল্যে বা নামমাত্র খরচে আমরা আপামর পশ্চিম বঙ্গের  সকল ছাত্র ছাত্রীর কাছে পৌঁছে দিতে চাই WBCS বা অন্যান্য সকল চাকরির জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত কিছু।  তা স্টাডি মেটেরিয়াল হোক, মক টেস্ট হোক বা অন্যান্য পিডিএফ বা ভিডিও। দরকার তোমার মনোযোগ শুধু।

পরিকল্পনা ও সেল্ফ স্টাডি 

নিজে পড়াশোনা করেও যে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায়  সফল হওয়া যায়, তার উদাহরণ ভুরিভুরি।

প্রথমেই যেটা করণীয় তা হল- সঠিক প্ল্যান ও তোমার নিজের মত একটা ছক। এটা একদম নিজস্ব হওয়া দরকার। অন্য কারো প্ল্যান এ কিন্ত তুমি বেশি দিন চলতে পারবেনা।

টাইম ম্যানেজমেন্ট 

মোটামুটি একটা রুটিন করে নিতে হবে যে, সকাল-দুপুর বিকাল মিলে তুমি কত ঘন্টা বের করতে পারছ যে টাই কিনা তোমার “Quality Time for Study”। রোজ হয়ত একই পরিমাণ সময় পাওয়া সম্ভব হবেনা। কিন্তু যেটুকু পাবে সেটাকে পুরোপুরি কাজে লাগানোর প্ল্যান করার ওপর একজন Aspirant এর সাফল্যের অনেকখানিই নির্ভর করে।

সময় বের করার সঙ্গে সঙ্গে আরো যেটা করতে হবে সেটা হল পড়ার সাবজেক্ট গুলো কে ওই সময়

 এর মধ্যে স্লটে ভাগ করে ফেলতে হবে অর্থাৎ কিনা আজ সকালের প্রথম দু’ ঘন্টা আমি ইতিহাস পড়ব, পরের এক ঘন্টা আমি অঙ্ক করব…এইরকম।

ফলো দি রুটিন  এন্ড বি কনফিডেন্ট 

যাই পড়ি না কেন, সেটা যেন pre-planned থাকে, haphazard way তে পড়লে কিন্তু তার ফল খুব ভাল হবেনা। যেমন, আমি আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি- আমি ডাইরীতে আমার রুটিন

লিখে রাখতাম; সেই রুটিন অক্ষরে অক্ষরে  পালন করতে না পারলেও আমার পড়াশোনাকে অনেকটাই “Structured” করেছিল। আসলে, আমি বলতে চাইছি- তোমরা তোমাদের নিজের মতো করে একটা সিস্টেম ডেভেলপ করো, এতে কিন্ত অনেক আত্মবিশ্বাসী লাগে এবং সাফল্যের সিঁড়িতে অন্যদের চেয়ে তুমি কয়েকধাপ এগিয়েও যাবে।

বন্ধুরা এই আত্মবিশ্বাস ই কিন্ত তোমার সাফল্যে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করে। কঠিন পরিশ্রমের যেমন কোনো বিকল্প নেই, তেমনি আমি সফল হব ই, নিজের মধ্যে এই চিন্তাও খুব প্রয়োজন।

প্রাথমিক কাজ 

প্রথমেই আমাদের কাজ হবে- বিগত দশ বছরের প্রশ্নপত্র খুঁটিয়ে দেখা ও সমাধান করে ফেলা। খুঁটিয়ে দেখতে বলছি এই জন্য যে এতে করে প্রশ্নের প্যাটার্ন অনুমান করা সহজ হয়। প্রশ্নকর্তার পছন্দের

বিষয়াভিমুখ খানিকটা অনুমান করা যায়।

প্রত্যেকটি বিষয় এর জন্য আলাদা নোটবুক করে তাতে দশ বছরের উত্তর গুলো লিখে রাখতে হবে।

পড়া  ও রিভিশন 


তাতে পরীক্ষার আগে রিভিসন এ সুবিধা হবে। আমাদের পড়ার বিষয় ও অনেক, পড়তেও হয় প্রচুর। কিন্ত এখানে একটা গুরুত্বপূর্ণ  বিষয় হল- রিভিসন। এটা ঠিক না হলে কিন্ত অনেক পড়া বিষয়ও পরীক্ষকের মনমত লিখে আসা যাবেনা। সুতরাং, যেটা পড়া হয়ে গেল সেটা কিন্তু মাঝে মাঝেই রিভিসন করে নিতে হবে।

বই নির্বাচন  

আমরা অনেক সময় কনফিউজড হয়ে যাই এই জন্য যে, কোনো একটি বিষয়ের জন্য বাজারে

অনেক বই পাওয়া যায়। অনেক পরীক্ষার্থীই কোনো একটি টপিকের জন্য দশটি বই পড়ে একটি নোট তৈরি করে। এতে কিন্তু সেই প্রতিযোগী খুব লাভবান হবেনা, কারণ সময় এতে অনেক চলে যায়, আর আমাদের লিমিটেড সময়ে বহু বিষয় কভার করতে হয়। তাই একটু স্ট্রাটেজিক না হলে এই পরীক্ষায় সফল হওয়া মুশকিল।

বই সংখ্যা লিমিটেড রাখতে হবে আর রিভিসন করতে হবে আনলিমিটেড।

কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ও সংবাদ পত্র  

সমস্ত বিষয় পড়ার মত দৈনিক খবরের কাগজ টিকেও একটি বিষয়ের মত করে নিতে

হবে। এবং এটি রোজ ই পড়তে হবে। অনেকেই মনে করে যে একসঙ্গে সাত দিনের খবর পড়ে ফেলা যাবে; হ্যাঁ সেটা হয়ত যাবে কিন্তু তাতে অনেক বিষয় বাদ পড়ে যাবার আশঙ্কা  থাকে। যখন রিভিসন করতে হবে তখন একসঙ্গে বেশ কয়েকদিন বা কয়েক মাসের করা যেতে পারে। এই প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় কারেন্ট আফেয়ার্স অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তাই কোনো মতেই একে আণ্ডার এস্টিমেট করা  যাবেনা। কারেন্ট আফেয়ার্স এর জন্য নিউজ পেপারের সঙ্গে ভালো ম্যাগাজিন পড়া যেতে পারে তবে

তার  সংখ্যাও রাখতে হবে সীমিত। টেলিভিশনের নিউজ এনালিসিস ও দেখা দরকার তাতে বিষয়গুলির উপরে দখল আরো বাড়ে।

তবে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছ মানেই এটা নয় যে আর অন্য কোন ধরণের বই পড়া যাবেনা, বরং সময় করে যদি অন্য কোনো বই সেটা গল্পের বই ও হতে পারে – পড়তে পারো সেটাও কিন্ত তোমার vocabulary, general knowledge, reading, writing skill কে বাড়াতে সাহায্য করবে।

মক টেস্ট ও ইন্টারনেটের ব্যবহার 

এই ধরনের পরীক্ষায় আর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল- মক টেস্ট। অর্থাৎ, শুধু  পড়ে গেলেই চলবেনা, নিয়মিত প্রতিটি বিষয়ে পরীক্ষা দেওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য।

আর এই ডিজিটাল যুগে হাতের কাছেই যখন আছে ইন্টারনেট, সেটাকে কাজে

লাগাতে পারো। আমাদের ইউটিউব চ্যানেল ও ওয়েবসাইট এ ব্যাপারে আমরা বলতেই  পারি স্ট্যান্ডার্ড সাপোর্ট দেয় , অনেক মক টেস্ট  দেবার সুযোগ রয়েছে। সেগুলোকে কাজে লাগিয়ে নিজেকে যাচাই করে দেখা যেতেই পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *